লক্ষ্মীপুরে সনদ বিহীন ডাক্তার,দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

দেশ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় সনদ বিহীন ও ড্রাগ লাইসেন্স বিহীন ডাক্তারী চিকিৎসা সেবা'সহ ঔষদ বিক্রয় করে অাসছেন কতিপয় কয়েকজন কথিত ডাক্তার।

সূএে জানা যায়, জেলার রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া বাজার নামক এলাকার জনৈক খায়রুননেছা, রুপালী বেগম ও আমেনা বেগম বাচ্চাদের পেটব্যথা, বুমি ও জ্বরের চিকিৎসার জন্য নিয়ে অাসেন রাখালিয়া বাজারের কথিত ডা: প্রদীপ বাবু'র কাছে। কথিত ডা: প্রদীপ বাবু বাচ্চাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা ছাড়াই এন্টিবায়োটিক সহ বিভিন্ন ধরনের ঔষধ দেন। এবং নিয়মিত ঔষধ সেবন ও সাতদিন পর অাবার চেম্বারে এসে দেখা করার জন্য বলেন।

সরেজমিনে, শনিবার ২২ জুলাই দুপুরে কথিত ডাঃ প্রদীপ কুমারের চেম্বারে গিয়ে জানতে চাই, অাপনি ডাক্তার কিনা। তিনি বলেন, আমি ডাক্তার না; কিন্তু রোগী দেখি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি শুধু ঔষধ বিক্রি করি এবং মহিলাদের কঠিন ও জটিল রোগের চিকিৎসা দেই।

তিনি বলেন, অনেকে আমার চিকিৎসা পেয়ে ভালো হয়েছে। এ জন্যে পরিবারের সদস্যদের আমার কাছে নিয়ে আসেন। মাঝে মধ্যে বড় বড় স্যারেরা আসলে তাদেরকে খামের ভেতরে কিছু দিয়ে দিলে আর কোনো সমস্যা হয় না। এভাবেই দীর্ঘ ৪০ বছর যাবত অামি অামার পেশা চালিয়ে আসছি।

সরেজমিনে শনিবার ২২ জুলাই দুপুরে গেলে কোনো ধরনের কাগজপত্র না থাকার কথা স্বীকার করে কথিত ডাক্তার প্রদীপ বাবু বলেন, ডাঃ পেশায় কোনো ধরনের সনদ'র প্রয়োজন হয় না বলেও তিনি জানান।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ শায়েলা জাহান শিমু ম্যাডাম'র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সনদ ছাড়া কেউ রোগী দেখতে পারবে না। এ ব্যাপারে তদন্ত করে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

এএইচএ/ডিএইচমি/২৩ জুলাই